প্রশ্নত্তোরে ডিজিটাল হাট

উত্তর: ডিজিটাল হাটে যেসব অনলাইন শপ সংযুক্ত রয়েছে। সেসব হাট থেকে সাধারণ নিয়মে পশু পছন্দ করে অনলাইনে পেমেন্ট দিয়ে কুরবানির পশু ক্রয় করা যাবে।

উত্তর: বাস্তবে যেমন সাইজ দেখে এবং ওজন আন্দাজ করে গরু কেনা হয়। তেমনি অনলাইন শপেও গরুর জাতের পাশাপাশি গরুর সাইজ ও ওজন লেখা থাকবে। তা থেকে সহজে ধারণা করা যাবে যে, গরুটির সঠিক দাম রয়েছে কিনা? কিছু গরুর আনুমানিক ওজন থাকবে কিছু গরুর ওজন ডিজিটাল স্কেলে মাপা থাকবে। যারা গরু বিক্রি করবেন তাদেরকে দাম সম্পর্কে একটা নির্দেশনা দেয়া আছে যেমন, বিক্রেতাগণ জীবন্ত পশুর দুই ধরনের ওজনের যেকোনো একটি উল্লেখ করবেন। প্রথমত, মাপকৃত ওজন যা ডিজিটাল স্কেল অনুসারে বিগত ১ মাসের মধ্যে নেয়া হয়েছে। দ্বিতীয়ত আনুমানিক ওজন যা অন্য কোনোভাবে নেয়া হয়েছে। জীবন্ত পশুর ওজনের উপর ভিত্তি করে বিক্রেতা বা দ্বিতীয়পক্ষ নিজেই দাম নির্ধারণ করবে।

উত্তর: অনলাইন শপে বিক্রিত বেশীরভাগ গরু লাইভস্টক অফিসার কতৃক বয়স ও সু-স্বাস্থ্য সনদপ্রাপ্ত হবে। তাই সার্টিফিকেট দেখে গরু বাছাই করলে গরুতে কোনো সমস্যা থাকার বিষয়টা সমাধান হয়ে যাবে। গরুর বিবরণে গরুর কয়টি দাঁত পরিপক্ক হয়েছে সেটাও উল্লেখ করা থাকে। তাই সহজে গরু সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। এছাড়া যেসব গরু স্লটারিং হাউজে যাবে। সেগুলো রিসিভ করার সময় আরো একবার স্বাস্থ্য ও ওজন পরীক্ষা করা হবে।

উত্তর: ক্রেতা গরুর ঘোষিত মূল্য দেখে তা শোধ করে দেবেন। এটা তিনি ভিসাকার্ড, মাস্টারকার্ড, বা এমেক্স কার্ড এর মাধ্যমে পরিশোধ করবেন। কেউ চাইলে ব্যাংক একাউন্টে ট্রান্সফার করেও মূল্য শোধ করতে পারেন। এছাড়া রয়েছে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধা। এখানে অনলাইন পেমেন্ট চার্জ এড হলেও হাসিল দিতে হবেনা বলে অনলাইন চার্জ ক্রেতার জন্য বাড়তি কোনো চাপ হবেনা।

উত্তর: বিক্রেতার ব্যাপারে সমস্ত দায়-দায়িত্ব মার্চেন্টকে নিতে হবে। তবে ক্রেতাকে কোনো রকম চার্জ কর্তন ব্যতিরেকে টাকা ফেরত দিতে হবে। অথবা সমমূল্যের অন্য একটি গরুর ব্যবস্থা করবে যদি ক্রেতা সেটি গ্রহণ করতে সম্মত থাকে।

উত্তর: বিক্রিত গরু ক্রেতার ঠিকানায় অথবা স্লটারিং হাউজে পৌঁছানোর দায়িত্ব বিক্রেতার উপর।

উত্তর: ডিজিটাল হাট থেকে গরু কেনার জন্য বাড়তি কোনো কমিশন দিতে হবে না। অনলাইন পেমেন্টে যে ব্যাংক চার্জ হয় সেটা প্রযোজ্য হবে। কেউ ‘‘নগদ’’ এর মাধ্যমে পেমেন্ট দিলে তা মাত্র ১%। যেহেতু অনলাইন শপ সেজন্য এখানে হাসিল প্রযোজ্য হবে না। তাই পেমেন্ট চার্জ দিলেও তা হাসিলের চেয়ে বেশী হবেনা।

যদি এক জেলার গরু আরেক জেলার ক্রেতা ক্রয় করেন সেক্ষেত্রে পরিবহনের বা ডেলিভারীর দায়িত্ব বিক্রেতাকে গ্রহণ করতে হবে। এক্ষেত্রে পথে গরুর কোনো ক্ষয়ক্ষতি হলে তার দায়ভার বিক্রেতা বহন করবে। যা কোনোভাবেই ক্রেতার উপর বর্তাবেনা।